বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ১০:৩৪ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি :
Welcome To Our Website...
শিরোনাম :
আসাদুজ্জামান আসাদের যত ‘অপকর্ম’ শ্রীপুরে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সাবেক ছাত্র নেতা মিজানুর রহমান মাগুরাবাসিকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন কাজী রফিকুল ইসলাম মাগুরাবাসিকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মাগুরা জেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক আলী আহম্মদ পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মাগুরা জেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক সাকিব পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন শরিয়ত উল্লাহ বঙ্গবন্ধু ল’টেম্পল কলেজের শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল প্রাথমিক শিক্ষকদের অনলাইন বদলি আবেদন শুরু শনিবার চট্টগ্রামে ১০ জুয়াড়ি গ্রেফতার

চট্টগ্রামে তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ করলেন ১৯ বছরের যুবক

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৩১ মার্চ, ২০২২
  • ৮০৫ বার পঠিত

প্রতিদিনের মত সেদিনও মাদ্রাসা থেকে বাসায় এসেছিলো তৃতীয় শ্রেণী পড়ুয়া আলেয়া (ছদ্মনাম)। তখন তার মা-বাবা দুজনই ছিলেন কর্মস্থলে। আর এই সুযোগে ১৯ বছরের যুবক মো. শাহীন (১৯) ম্যাজিক লাইটের লোভ দেখিয়ে ধর্ষণ করে মাত্র নয় বছরের এই শিশু কন্যাকে।

এই ঘটনা ঘটেছে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড থানা এলাকায়। গত বুধবার (২৩ মার্চ) সীতাকুণ্ডে ধর্ষণের শিকার হয়েছে তৃতীয় শ্রেনী পড়ুয়া আলেয়া। ঘটনার পর শনিবার (২৭ মার্চ) শিশুটির বাবা স্থানীয় থানায় ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের করেন।

পরবর্তীতে এই মামলার আত্মগোপনে থাকা আসামী শাহীনকে চট্টগ্রামের জোরারগঞ্জ থানার বারৈয়ারহাট এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব।

বুধবার (৩০ মার্চ) রাতে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। শাহীন সীতাকুণ্ড থানার ইয়াসিন নগর এলাকার নেজাম উদ্দিনের ছেলে।

র‍্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ঘটনার দিন মাদ্রাসা থেকে ঘরে আসে আলেয়া, তখন তাদের ঘরে সে একা ছিলো। এই সুযোগে ম্যাজিক লাইট দেখাবে বলে নিজের ঘরে নিয়ে যায় শাহীন। পরবর্তীতে ঘরে নিয়ে জোর করে ৯ বছরের শিশুটিকে ধর্ষণ করে সে। শিশুটির চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে শাহীন তাকে নিজের ঘরে রেখেই পালিয়ে যায়।

স্থানীয়রা বিষয়টি আলেয়ার মা-বাবাকে জানায়। তারা দ্রুত এসে তাকে প্রথমে সীতাকুন্ড স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসে। এখনো আলেয়া চমেকে চিকিৎসাধীন আছে।

ঘটনার পর ২৭ মার্চ আলেয়ার বাবা বাদি হয়ে সীতাকুণ্ড থানায় মামলা দায়ের করে। নিজেকে বাঁচাতে মামলার পর থেকে ঘন ঘন নিজের অবস্থান পরিবর্তন করতে থাকে শাহীন। কিন্তু র‍্যাব গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে তাকে বুধবার রাতে জোরারগঞ্জ থানা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়।

আসামী শাহীনকে সীতাকুণ্ড থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলেও র‍্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs