বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৫:৩২ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি :
Welcome To Our Website...

চট্টগ্রাম মেডিকেলে বিনামূল্যের ওষুধ বিক্রি হয় বাইরে, হাতেনাতে প্রমাণ পেল দুদক

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১০ মার্চ, ২০২২
  • ১৮৭ বার পঠিত

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২৬ নম্বর ওয়ার্ড। রোগীদের জন্য বিনামূল্যে বিতরণের জন্য ওষুধ মজুদ থাকার পরও এসব ওষুধ বিতরণ না করে বিক্রির জন্য জমা করে রেখেছেন সেখানকার কর্মচারী ও কর্মকর্তারা। ওষুধ সংরক্ষণ করা সেই স্টোরের কাগজপত্রের সঙ্গে ওষুধ বিতরণ হিসেবে দেখানো হিসাবের কোনো মিল নেই। হাতে পুশ করা স্যালাইনসহ নামমাত্র কিছু ওষুধই শুধু দেখা গেল সেখানে।

বৃহস্পতিবার (১০ মার্চ) বেলা ১১টার দিকে দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয়, চট্টগ্রাম-১ এর উপপরিচালক মো. নাজমুছ ছায়াদাতের নেতৃত্বে পরিচালিত দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে গিয়ে এমন সব অনিয়ম হাতেনাতে ধরেছে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) একটি দল। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন দুদকের উপপরিচালক আবু সাঈদ (সংযুক্ত) এব সহকারী পরিচালক এনামুল হক।

দুদক জানায়, দুদক হটলাইন ১০৬ নম্বরে সরকারি ওষুধ বিতরণের অনিয়মের খবর পেয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেলে ঝটিকা এই অভিযান চালায় দুদক। অভিযানে চমেক মেডিকেলের আউটডোরে অবস্থিত বেশ কয়েকটি ফার্মেসির ওষুধ বিতরণ এবং চালান ও রশিদের সমস্ত কাগজপত্র ঠিকঠাকমতো রয়েছে কিনা দেখেন দুদক কর্মকর্তারা। তারা হাসপাতালের কেন্দ্রীয় ওষুধাগারের বিভিন্ন কাগজপত্রও পরীক্ষা করে দেখেন। ওষুধাগারের কাগজের সঙ্গে আউটডোরের সংরক্ষণ ও বিতরণের কাগজপত্রও মিলিয়ে দেখে দুদকের দলটি।

দুদক সূত্র জানিয়েছে, ওষুধ মজুদ করার স্টোরের কাগজপত্রগুলো অরিজিনালের সঙ্গে কার্বন কপির মিল নেই। হাসপাতালের ২৬ নম্বর ওয়ার্ডে গিয়ে দেখা গেছে, ওষুধ মজুদ রয়েছে কিন্তু রোগীদের সরবরাহ করা হচ্ছে না। ওষুধ থাকার পরও বাইরে থেকে কিনে আনতে বলছেন হাসপাতাল কর্মীরা। এ ধরনের ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে হাসপাতালের পরিচালককে জানানো হবে বলে দুদক কর্মকর্তারা জানান।

দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয়, চট্টগ্রাম-১ উপপরিচালক (সংযুক্ত) মো. আবু সাঈদ বলেন, ‌‘ওষুধ চুরির ঘটনার তদন্তে গিয়ে সেখানে তার সত্যতা মেলেছে। ওষুধ থাকার পরওও সেখানে রোগীদের সরবরাহ না করে বাইরে বিক্রি করার সত্যতা পাওয়া গেছে। স্টোরে অরিজিনাল কাগজের সঙ্গে সংরক্ষণ করা কার্বন কপির কোনো মিল নেই। ২৬ নম্বর ওয়ার্ডে যথেষ্ট ওষুধ থাকার পরও ওই ওষুধগুলো বিক্রির উদ্দেশ্যে কর্মচারীরা জমা করে রেখেছে।’

তিনি বলেন, ‘অভিযানের তথ্য কমিশন বরাবরে পাঠানো হবে। সেখান থেকে পরবর্তীতে নিদের্শ মোতাবেক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এর আগে, গত ৭ ফেব্রুয়ারি হাসপাতাল থেকে সাড়ে ৩ লাখ টাকার সরকারি ওষুধ চুরির ঘটনায় হাসপাতালের গোল চত্বর থেকে দুজনকে গ্রেপ্তার করে পাঁচলাইশ থানা পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন হাসপাতালের ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের সরকারি স্টাফ হিসেবে কর্মরত আশু চক্রবর্তী এবং আউটসোর্সিং কর্মচারী মো. সৈয়দ। এ ঘটনায় চমেকের স্টোর অফিসার ডা. মো. হুমায়ুন কবির বাদি হয়ে একটি নিয়মিত মামলা দায়ের করেন। এরই অংশ হিসেবে বৃহস্পতিবার (১০ মার্চ) অভিযানে নামে দুদক।

সূত্র: চট্টগ্রাম প্রতিদিন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Deshjog TV