বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১১:৫৫ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি :
Welcome To Our Website...
শিরোনাম :
আসাদুজ্জামান আসাদের যত ‘অপকর্ম’ শ্রীপুরে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সাবেক ছাত্র নেতা মিজানুর রহমান মাগুরাবাসিকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন কাজী রফিকুল ইসলাম মাগুরাবাসিকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মাগুরা জেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক আলী আহম্মদ পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মাগুরা জেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক সাকিব পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন শরিয়ত উল্লাহ বঙ্গবন্ধু ল’টেম্পল কলেজের শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল প্রাথমিক শিক্ষকদের অনলাইন বদলি আবেদন শুরু শনিবার চট্টগ্রামে ১০ জুয়াড়ি গ্রেফতার

মহিষ চুরির দায়ে চেয়ারম্যান বরখাস্ত, পদ শূন্য ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১০ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ১৬৩ বার পঠিত

মহিষ চুরির মামলায় গ্রেপ্তার হওয়া চকরিয়া উপজেলার শাহারবিল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নবী হোসাইনকে পদ থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। তাকে বরখাস্ত করে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদ শূন্য ঘোষণা করা হয়েছে। গরু ও মহিষ চুরিতে অভিযুক্ত এবং নানা অনিয়মের কারণে তার বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা নিয়েছে স্থানীয় সরকার।

সোমবার (৮ জানুয়ারি) স্থানীয় সরকার,পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব জেসমীন প্রধান স্বাক্ষরিত এক চিঠির মাধ্যমে চকরিয়া শাহারবিল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নবী হোসাইনের চেয়ারম্যানের পদ শূন্য ঘোষণা করা হয়। তিনি চকরিয়ার শাহারবিল এলাকার মৃত হাবিবুর রহমানের ছেলে।

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, শাহারবিল ইউপি চেয়ারম্যান নবী হোসাইনের বিরুদ্ধে বর্তমানে মহিষ চুরিসহ রায় আছে। এই কারণে স্থানীয় সরকার আইনের বিধি মতে চেয়ারম্যান নবী হোসাইনকে বরখাস্ত করে চেয়ারম্যান শূন্য ঘোষণা করা হলো।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নবী হোসাইন বলেন, আমার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ মিথ্যা ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। ষড়যন্ত্র করে আমাকে ফাঁসানো হয়েছে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, মহেশখালীর কুতুবজোমের তাজিয়াকাটার মৃত দুদু মিয়ার ছেলে এবাদুল হক গত বছর ৫ জুন নবী হোসাইন ও তার ভাই লেদু মিয়াসহ ৯ জনকে মহিষ চুরির অভিযোগে আসামি করে মহেশখালী থানায় মামলা করেন। এতে উল্লেখ করা হয় এবাদুল হকের পরিবারে ১৮টি মহিষ তাজিয়াকাটায় খামারে রাখা ছিল। ২০২১ সালের ৪ জুন ভোররাত ২টার দিকে একদল দুর্বৃত্ত তার খামার থেকে চারটি মহিষ ইঞ্জিন বোটে তুলে নদীপথে এলাকা ত্যাগ করে। চোরচক্র চকরিয়ার চোরারফাড়ি ঘাটে বোট নোঙর করে মহিষগুলো নিয়ে পাড়ায় ঢুকে পড়ে। একপর্যায়ে তারা মহিষগুলো একটি বাড়িতে ঢুকিয়ে ফেলে। এবাদুল নদীরঘাট হতে তাদের পেছন পেছন গিয়ে সকল দৃশ্য কৌশলে ভিডিও ধারণ করে। পরে স্থানীয় লোকজনকে ভিডিও দেখিয়ে বাড়িটি নবী হোসাইন ওরফে নইব্যা চোরার বলে শনাক্ত করার পর চোরদের তথ্য সংগ্রহ করে মামলা করেন। তবে উচ্চ আদালত থেকে আগাম জামিন নেন তিনি। সেই জামিনের সময় শেষ হলে বিগত ১৩ ডিসেম্বর নিম্ন আদালতে জামিনের আবেদন করেন মামলার প্রধান আসামি ও সাবেক চেয়ারম্যান নবী হোসাইন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs