বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:১২ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি :
Welcome To Our Website...
শিরোনাম :
পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সাবেক ছাত্র নেতা মিজানুর রহমান মাগুরাবাসিকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন কাজী রফিকুল ইসলাম মাগুরাবাসিকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মাগুরা জেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক আলী আহম্মদ পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মাগুরা জেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক সাকিব পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন শরিয়ত উল্লাহ বঙ্গবন্ধু ল’টেম্পল কলেজের শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল প্রাথমিক শিক্ষকদের অনলাইন বদলি আবেদন শুরু শনিবার চট্টগ্রামে ১০ জুয়াড়ি গ্রেফতার চট্টগ্রামে চোরাই সিএনজিসহ গ্রেপ্তার ২ চট্টগ্রামে চোলাই মদসহ গ্রেপ্তার ৪

মাগুরায় আদালতের আদেশ অমান্য করে স্থাপনা ভেঙে দেওয়াল নির্মাণের অভিযোগ

শ্রীপুর (মাগুরা) প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ৬৬ বার পঠিত

মাগুরায় আদালতের আদেশ অমান্য করে স্থাপনা ভেঙে, বাথরুমের যাওয়ার পথ আটকানোসহ গাছ কেঁটে দেওয়াল নির্মাণ চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। মাগুরা সদর উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নের ফুলবাড়ি লক্ষীকোল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আয়ুব হোসেন জোয়ার্দ্দার, গোলাম নবী জোয়ার্দ্দারসহ ৮ জন বাদী হয়ে প্রতিবেশী টুকু জোয়ার্দ্দার, মুকুল জোয়ার্দ্দার ও বকুল জোয়ার্দ্দারের বিরুদ্ধে মাগুরা আদালতে একটি দেওয়ানী মামলা করেছেন।

১১ সেপ্টেম্বর সোমবার সরজমিনে গিয়ে ও মামলার বিবরণে জানা যায়, মাগুরা সদর উপজেলার ৭নং হাজীপুর মৌজার সাবেক ১০৫১ নং দাগের ১ অংশে ১৪ শতাংশ অন্যান্য জমিজমায় বিগত এস.এ রেকর্ড আমলে জালাল উদ্দীন জোয়ার্দ্দার স্বত্বদখল হয়। জালাল উদ্দীনের নামে এস.এ ৬৭৪ নং খতিয়ানে এস.এ রেকর্ড চূড়ান্তভাবে প্রস্তুত ও প্রকাশিত হয়। জালাল উদ্দীন জোয়ার্দ্দার শরিকান আপোষ বণ্ঠকের মাধ্যমে ২ শতাংশ জমি বাদীপক্ষের কাছে বিক্রি করে। সাবেক ১০৪৭ এবং ১০৪৮ নং দাগের ২৩ শতাংশ ও ২০৫১ নং দাগের সাথে একত্রে ২৫ শতাংশ জমি বাদীপক্ষ ভোগদখল করে আসছে। ২৫ শতাংশ জমির মধ্যে ২ শতক জমি নিয়ে মাগুরা বিজ্ঞ আদালতে একটি দেওয়ানী মামলা হয়। আদালত ওই জমিতে স্থিতিবস্থা বজায় রাখার আদেশ দেন। কিন্তু বিবাদীরা আদালতের আদেশ অমান্য করে ওই জমিতে থাকা গোয়ালঘর ভেঙে দেয়। বাথরুমে যাতায়াতের রাস্তা বন্ধ করে দেয়। শুধু তাই নই ওই জমিতে থাকা বেশ কয়েকটি গাছ কেঁঁটে পাঁকা ইটের দেওয়াল নির্মানের কাজ শুরু করে।

এ বিষয়ে বাদী গোলাম নবী জোয়ার্দ্দারের ছেলে রহমতুল্লাহ জোয়ার্দ্দার বলেন, “আমরা ৪৯ বছর ধরে আমরা এই জমি ভোগদখল করে আসছি। এই জমি নিয়ে আদালতে দীর্ঘদিন ধরে মামলা চলে আসছে।আদালত জমিতে স্থিতিবস্থা বজায় রাখার নির্দেশ দিয়েছে। কিন্তু মিজানুর রহমান আদালতের আদেশ অমান্য করে দেওয়াল দিয়েছে। এ সময় আমার গোয়ালঘর ভেঙে দিয়েছে। গরুগুলো রাস্তায় রাখছি। বাথরুম ও দেওয়াল দিয়ে আটকিয়ে দিয়েছে। বাড়ির মেয়েছেলেরা বাইরে পর্যন্ত যেতে পারছে না। শুধু তাই নই বেশ কয়েকটি গাছ ও কেঁটে নিয়েছে। আমরা কিছু বললেই আমাদের নানাভাবে হুমকি দিচ্ছে। আমরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমরা সঠিক বিচার চাই।”

এ বিষয়ে বিবাদী টুকু জোয়ার্দ্দার মুঠোফোনে বলেন, “এ বিষয়ে আদালতের কোন নোটিশ পাইনি। ওই জমির মালিক আমরা৷ আমাদের জমি আমরা বুঝে নিয়েছি।”

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs