সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:৩৭ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি :
Welcome To Our Website...

সম্রাট মুক্ত, থাকছেন হাসপাতালেই

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১২ মে, ২০২২
  • ২১৬ বার পঠিত

সব মামলায় জামিন পাওয়ার পর মুক্তি পেয়েছেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট। বুধবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে সব প্রক্রিয়া অনুসরণ করে তাকে কারামুক্তি দেয়া হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার মো. মাহাবুবুল ইসলাম।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, কারামুক্তি হলেও এখনই বাড়ি ফিরছেন না এই যুবনেতা। শারীরিক কারণে তিনি কিছুদিন বঙ্গবন্ধু শেখ ‍মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালেই (বিএসএমএমইউ) থাকছেন।

অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা মামলায় বুধবার জামিন পান ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট। এর মধ্য দিয়ে সব মামলায় জামিন পাওয়ায় তার কারামুক্তিতে সব বাধা কেটে যায়।

হৃদরোগে আক্রান্ত সম্রাট দীর্ঘদিন ধরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসাধীন। এই হাসপাতাল থেকেই তার মুক্তির ব্যবস্থা করেছে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার কর্তৃপক্ষ। সম্রাটের জামিন আদেশ আদালত থেকে কারাগারে পাঠানো হয়। কারা কর্তৃপক্ষ তাকে মুক্তি দিতে প্রয়োজনীয় নথি হাসপাতালে পাঠায়। পরে সেখান থেকেই তাকে মুক্তি দেয়া হয়।

জেলার মো. মাহাবুবুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা আদালত থেকে জামিননামা পাওয়ার পর তাকে মুক্তি দিতে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র তৈরি করা হয়।

সম্রাট অসুস্থ থাকায় বন্দি অবস্থাতেই বিএসএমএমইউ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তাই তাকে কারাগারে না এনে হাসপাতাল থেকেই মুক্তি দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এ লক্ষ্যে অনুমতির জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতি আবেদন জানানো হয়। মন্ত্রণালয়ের অনুমতিসাপেক্ষে তাকে হাসপাতাল থেকেই মুক্তি দেয়া হয়।’

২০১৯ সালের ১২ নভেম্বর দুদকের উপ-পরিচালক মো. জাহাঙ্গীর আলম দুই কোটি ৯৪ লাখ ৮০ হাজার ৮৭ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে সম্রাটের বিরুদ্ধে মামলা করেন। এই মামলায় বুধবার ঢাকার ৬ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক আল আসাদ মো. আসিফুজ্জামান শুনানি শেষে সম্রাটের জামিনের আদেশ দেন। মানবিক কারণ উল্লেখ করে ৯ জুন পর্যন্ত তাকে জামিন দিয়েছে আদালত।

সম্রাটের জামিনে তিনটি শর্ত দিয়েছেন আদালত। শর্তগুলো হলো- বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা, পাসপোর্ট জমা এবং ৯ জুন ধার্য তারিখে মেডিক্যাল রিপোর্ট দেখাতে হবে।

চার মামলার মধ্যে তিনটিতে আগেই জামিন পেয়েছেন সম্রাট। এর আগে গত ১১ এপ্রিল রমনা থানার মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলা এবং ১০ এপ্রিল অর্থ পাচার ও অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় জামিন পান তিনি।

২০১৯ সালের ৬ অক্টোবর কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থেকে সম্রাট ও তার সহযোগী এনামুল হক আরমানকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। পরে তাকে নিয়ে তার কাকরাইলের কার্যালয়ে অভিযান চালানো হয়।

ওই অভিযানে বিপুল পরিমাণ বিদেশি মদ, পিস্তল ও বিরল প্রজাতির বন্যপ্রাণীর চামড়া উদ্ধার করা হয়। পরে বন্যপ্রাণীর চামড়া রাখার দায়ে তাকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেয় ভ্রাম্যমাণ আদালত। ওইদিনই সম্রাটকে কারাগারে নেয়া হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Deshjog TV